Sunday, September 22, 2013

ঘুমের মর্যাদা

Shafeen tired

কিছু কিছু বিষয় আছে, যার অভিজ্ঞতা নিজের না হলে ঠিক বোঝা যায় না। যেমন, আগে দেখতাম, অনেকে ঘুম হয় না, ঘুম আসেনা বলে কান্নাকাটি করছে, ঘুমের ট্যাবলেট খাচ্ছে নিয়মিত। আমি ভাবতাম, ঘুম না হলে এতো মন খারাপের কি আছে। ঘুম না হলে ঐ সময় অন্য কাজ করা যায়। অন্তত: বই তো পড়া যায়...।
ঘুম যখন আসার আসবে।

আমি নিজে ছাত্র জীবনে অনেক ঘুমাতাম। দিন দুনিয়া দুরে থাক, আমি তো পড়াশুনা নিয়েও টেনশন করতাম না। সুতরাং চোখ থেকে ঘুম পালানোর কোন সুযোগ পায়নি। চাকুরী জীবনে কাজের খাতিরে ঘুম কমিয়ে ফেলতে হলো। তাও খারাপ লাগতো না। একটা ২দিন ২রাত জেগেও প্রজেক্ট কমপ্লিট করেছি। খারাপ লাগে নি। বিয়ের পর দায়িত্ব পালন করতে যেয়ে রাতে ১টায় ঘুমাতাম আবার ৫টায় উঠতাম। ভাল না লাগলেও মানিয়ে নিয়েছিলাম।

ছেলে হবার পর দুনিয়া পাল্টে গেল। একটা জলজ্যান্ত মানুষের এ টু জেড চিন্তা, কাজ, দায়িত্ব সব মিলিয়ে ঘুমের জায়গা আর রাখা গেল না। এবার ৪ দিন ৪ রাত জেগেও সব করতে হয়েছে। ঘুমের কোন নির্দিস্ট সময় পাওয়া যায় না। ফলে ঘুম বেচারা মাঝে মাঝে ভুলেই যায়, কখন তার আসতে হবে, আর কখন দুরে থাকতে হবে।

আর ঘুম না হলে, দেখা গেল, মাথা ঠিক মতো কাজ করছে না। এতে আমার চেয়ে আমার ছেলের কষ্ট হয় বেশি। সুতরাং ঘুমাতে হবে। এতো দিনে ঘুমের মর্মার্থ বুঝলাম। এখন তো রাতে ঘুম না আসলে মনে হয়, ঘুমের অষুধ খাওয়া শুরু করি। ঘুমের জন্য এখন আমিও কান্নাকাটি করি, মনে মনে।
Post a Comment