Saturday, November 30, 2013

"কপালে সুখ সহ্য হয় না"


কপালে সুখ সহ্য হয় না। কথাটা কারো কারো ক্ষেত্র একদিন ঠিক। বুঝতেই পারছেন, নিজের কথাই বলছি। হতে পারে, সুখে আছি বলেই ভুতে কিলাচ্ছে। তারপরও  এমন সব ঘটনা ঘটে যে, মনে মনে অবাক হতে হতেও হয়রান হয়ে গিয়েছি। উদাহরন দিচ্ছি,

ছেলের স্কুলে ফান ডে পারটি (শেষ ক্লাস)।
ইচ্ছে করেই শনিবারে রাখা হয়েছে যেন কোন ঝামেলা না হয়। ছেলে কে স্পাইডার ম্যান সাজাবো, নিজে কোন শাড়ি পড়ব, স্কুলে কি কি ভাবে সাজাচ্ছে, না জানি কি খাওয়াবে, আমরা নিজেরা (মায়েরা) কি খাবার অর্ডার দিব ইত্যাদি নানা আয়োজন। ঠিক আগের রাতে শুনলাম সব বাতিল (আপাতত:)।

আম্মা বাসায় আমার বড় বোন আর সেজ বোনকে আম্মা সব সময় খুব যত্ন করে খাওয়ায়। আমি কি খাই না খাই খেয়াল করার দরকার হয়না। ছোট বেলায় একদিন সকালে খেতে বসার পর আম্মা রুটি ভেজে সবার আগে আমার প্লেটে দিলেন, আমি খুব অবাক। আজ আমাকে নিজে আদর করে খাওয়াচ্ছেন! খেতে গিয়ে ভুল ভাংলো। রুটিটা আগের দিনের, তাই আমাকে আগে সেটাই দিচ্ছেন, যেন আমি আজকে গরম রুটি না ধরে এটা খাই। ভাল।

এমনই হয়। কোন কারনে যদি খুব খুশি হই, যখন মনের প্রতিটি অংশ খুশিতে নাচতে থাকে, আমি তখনই বুঝি, আমার এই আনন্দ ২৪ ঘন্টাও টিকবে না। যে-ই মনটাকে এই আনন্দ দিক না কেন, কেন যেন এরপর এমন একটা ব্যবহার করবে, যেন আমার মন পুরোপুরি ভেংগে যায়।

কি আর করা। মন থেকে যে ভালবাসা আসে না, তা জোর করে পাওয়ার আর চেষ্টা করিনা। এরচেয়ে শুন্য হয়েই থাকে, মাঝে মাঝে আনন্দের একটু ছিটা ফোটা যা পাই, তাই নিয়েই আনন্দ। মন্দ কি। মনে মনে বলি, সে আছে, থাকবে, বাস্তব যাই হোক না কেন।
Post a Comment