Sunday, July 13, 2014

এখন একটু সাবধানে কমেন্ট করি ফেসবুকে (Now I became aware on commenting in Facebook)


একটা সময় ছিল যখন ফেসবুকে যে পোস্ট ভাল লাগত, সেটাতেই কমেন্ট করতাম বা লাইক দিতাম. আমি যে কত বড় বোকা সেটা অল্প সময়েই টের পেলাম. কারন সবাই আমার উপস্থিতি পছন্দ করে না.

তাই একটু সাবধান হয়ে গিয়েছি. কোথাও কমেন্ট করার আগে, দেখে নেই, এই ব্যক্তি কি আমার কমেন্ট পেয়ে বিরক্ত হবে? কি দরকার অযথা মানুষকে বিব্রত করার. তারপরও ভুল হয়েই যায় কখনোও কখনোও. কি আর করা. একবার মেজাজ দেখালে বা ইগনোর করলে, আর ওখানে যাই না. আগে এমনটা করলে ব্লক করে দিতাম. দেখতেও হবে না, যোগাযোগও হবে না. এখন সহ্য ক্ষমতা বেড়েছে. কিছু না বলে চুপচাপ দুরে থাকি.
হয়তো অনলাইনে আমি একটু বেশি সময় দেই. হয়তো কারো লেখা গভীর আগ্রহে দেখি আর নতুন লেখার জন্য অপেক্ষা করি. আর নিজের কষ্ট বাড়াই.

সবারই কাজ কর্ম আছে. অন্যের লেখার দিকে তাকিয়ে থাকলে জীবন চলে না. সবাইকে তাদের মতো ছেড়ে দেয়াই ভাল. যার ইচ্ছা করবে, সে নিজেই সময় দিবে. চাইতে হবে কেন? আমার নিজেরও উচিত নিজেকে সময় দেয়া. তাহলে অন্যেও শান্তিতে থাকবে :) তাছাড়া আমার উন্নতিতে হয়তো আরো অনেকে লাভবান হবেন.

Few days ago, I use to comment and give like to any one's post in Facebook, if I liked them. But then I realize how fool I am, because everyone doesn't want to see my presence.

So, I became aware, before commenting or giving like I first check who had given the post. Will that person be annoyed because of my comment? Why should I disturb people? But still, sometimes I do mistakes. I can't prevent it.

Generally when any one show me anger or ignore me, I don't go there. Previously I use to block those persons. Now a day my tolerance power increased. So, I just ignore them.

May be I am giving too much time online. May be I wait to see some people's post and wait for the new writing. This actually hurts me.

Everyone has their own work. People can't live by thinking about other's writing. I should let everyone live their own world. If anyone wants to give time, they will give. Why should I ask for it?


If I concentrate on my life, then others may live happy. :) If I live better, it may give benefit to others too.
Post a Comment