Friday, June 28, 2013

দুনিয়াতে মেয়েদের মন পাবার জন্য খুব বেশি করার দরকার নেই।


অনেকেই বলেন, মেয়েদের মন বোঝা যায় না, মেয়েরা যে কি চায় কিছুই বোঝা যায় না। আমি বলব? মেয়েরা চায় একটু সম্মান। ভাবছেন, সে তো পায়ই। নাহ পায় না।

একটা ছেলে যখন একটা মেয়েকে দেখে, তখন শারিরীক কারনেই প্রথমত: আকর্ষন অনুভব করে। খারাপ কি, এটাই স্বাভাবিক। তারপর তাকে পাবে না জেনে বা পাবার জন্যই নানা রকম কাজ কর্ম করতে থাকে। এতেও দোষের কিছু দেখিনা। কথা হলো সেই কাজকর্মগুলো কি? কোকিলের মতো শীষ বাজানো, কি ভেবে করে, এই সুরেলা সুর শুনে মেয়েটা মুগ্ধ হয়ে যাবে বা তার দৃষ্টি আকর্ষন করা যাবে? অথবা নিজের হেরে গলা ছেড়ে গান? বাজে কুরুচিপুর্ন মন্তব্য যাতে মেয়েটা অসস্তিবোধ করে। তাই দেখে আনন্দ নেয়া। চোখ দিয়ে কাপড়ের উপরে যতটা সম্ভব শরীরের নানা অংশ বোঝার চেস্টা করা? যাতে মেয়ে খুব আনন্দ বোধ করে?

আসলেই কি মেয়েরা এসব পছন্দ করে? না। তাহলে মেয়েদের আকর্ষন করার জন্য এসব কেন?

অনেকে বলেন, আমরা একটা পাইনা আর এই ছেলে একের পর এক মেয়ে পটিয়ে যাচ্ছে। মেয়েরা এই কুদর্শন ছেলের মধ্যে যে কি দেখে, সব এর জন্য পাগল। বলছি, কি ভাবে এই ধরনের ছেলেকে, কেন এতো মেয়ে পছন্দ করে। মেয়েদের প্রতি সম্মানবোধ। সেটা যদি মন থেকে নাও দিতে পারেন, তো অন্তত: উপর দিয়ে বা সামনা সামনি ভাবে দেখান, এটাও জেনেশুনেই মেয়েরা পছন্দ করে।

বাসে প্রচন্ড ভীড়, সবাই দাড়িয়ে থাকা মেয়েটা আরো বেশি ঢাক্কা দিচ্ছে, এসময় যে ছেলেটা পাশে দাড়িয়ে ঢালের মতো মেয়েটাকে বাঁচিয়ে দিবে, মেয়েরা তাকে পছন্দ করবে। সবাই একসাথে পিকনিকে যাচ্ছে, সবচেয়ে ভাল সিট দখল করে আপনি বসে থাকলেন আর মেয়েরা কষ্ট করে পিছনের সিটে বসল। কি ভাবছেন মেয়েরা আপনাকে বীর পুরুষ ভাবছে? নাকি ওদের সামান্য সুবিধাটুকু দিয়ে আপনি দাড়িয়ে থাকলে ওদের চোখে আপনার সম্মান বাড়বে?

এমনি নানা খুব ছোটখাট সুবিধা আছে, যা আপনার না হলে তেমন কিছু আসে যায় না, অথচ মেয়েদের জন্য বেশ বড় ইস্যু। এটা মনে রাখবেন। ভাড়ি কোন জিনিস ক্যারি করে দেয়া, গেইটা খুলে দাড়িয়ে আগে ঢুকতে দেয়া, আর কিছু না হোক, রাস্তায় কাউকে বিরক্ত না করা বা ঢাক্কা না দেয়া এসবও  অনেক। আপনি মেয়েদের স্বাধীন ভাবে চলতে দিন, পারলে সাহায্য করুন। দেখবেন মেয়েরা খুব সুন্দর ভাবে সহজে আপনার সাথে মিশছে, কথা বলছে। দুনিয়াতে মেয়েদের মন পাবার জন্য খুব বেশি করার দরকার নেই।

তবে আপনি যদি কোন মেয়ের, সবচেয়ে প্রিয় আসন স্থায়ী ভাবে পেয়ে যান, তাহলে অবশ্য এরপর আরো অনেক কিছু যোগ হবে। কারন সাড়া দুনিয়ার সুখ সে তখন আপনার কাছ থেকে পাবার আশা করবে। আর তার এই ভালবাসা ধরে রাখার জন্য আপনাকে যথাসাধ্য চেষ্টা করতে হবে। না হলে, ধীরে ধীরে না পাবার কষ্ট মেয়েদের মনে বসে যায়। সে, না সুখি হতে পারে, না আপনাকে সুখি করতে পারবে। আর সম্মান দেখানোতে আপনার সম্মান কমবে না।
Post a Comment