Sunday, April 19, 2015

সুখি মুখ (Happy face)


[English version has given below]

ঢাকা শহরের মানুষ নাকি খুব সুখি. রাস্তায় যখন বের হই, যে কয়টা মানুষের মুখ দেখি, দেখে মনে হয় খুব সুখে আছে। তবে প্রেমিক-প্রেমিকাকে যখন এক সাথে দেখি, এরা সব সময়ই সুখি, তা সে যেখানে যে অবস্থাতেই থাকুক না কেন। যেমন, বাস কাউন্টারে যখন দাড়াবেন, বাসের দেরি হলে সব মানুষ মহাবিরক্ত মুখে দাড়িয়ে থাকে, তবে টোনাটুনিকে দেখবেন, এতো বিরক্তির মাঝেও সুখি মুখে গুটুর গুটুর গল্প করছে। ভালই লাগে, কেউ তো সুখি! তবে এর কারন পুরোপুরি ব্যাক্তিগত।

কিছুদিন আগে গাড়িতে ফেরার সময় দেখলাম, দুজন নিম্নবিত্ত (পোষাক দেখে আন্দাজ করলাম) মহিলা যাচ্ছেন। দুজনের হাতেই নতুন বড় জালি চামুচ (ভাজাভুজি করা হয়ে যে চামুচ দিয়ে)। তবে চামুচের মান মনে হলো ভালো না। দুজনেই চামুচ ধরে দেখছে, নিজেরা কথা বলছে, খুব খুশি মুখে, অনেক কষ্টে হাসি চেপে আছে। মনে হলো খুব কম দামে হঠাৎ পেয়ে গেছে, দুজনে দুজোড়া কিনে নিয়েছে।
ওদের সুখি মুখ দেখে এতো ভালো লাগল। কত সামান্য বিষয় নিয়েই না দুজনে কত খুশি! :)


From a survey it’s been said the people of Dhaka city are very happy. When I go out, on road, the faces I have been watched are seems having happy life. Especially love birds. They are always happy, no matter how the situation is. For example, in a bus counter people are waiting for the bus, it was very late, you will see disappointment on every person's face but the love birds. After all these harassment of bus schedule they will find a corner and keep talking with each other with a happy face. You know what, its looks really cute. At least some people are happy, though the reason is totally private.

Few days back, when I was returning home from office, I saw two lower class (guessed it from their cloths) women were walking together. Both of them were holding two big strainer spoons (use to fry). The quality of the spoons wasn't so great, but they were very happy, can't stop laughing and walking and talking... seems both of them got it in discount from any place, so each of them bought two spoons.

I felt really good to see those happy faces. For a very tiny issue they became so happy! :)

[October 13, 2006]
Post a Comment